হবিগঞ্জ ০৪:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন Logo আইনশৃঙ্খলায় অবদান রাক্ষায় জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার ওসি হিল্লোল রায় Logo চুনারুঘাটে এফ.এন ফাউন্ডেশন ইউকে’র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল Logo ফ্রেন্ডস ফাউন্ডেশন ও এসএসসি’৯১ ব্যাচ সিলেট বিভাগের মানবিক কার্যক্রম সম্পন্ন Logo চুনারুঘাটে যৌতুকের দাবীতে গর্ভবতী গৃহবধুকে ৫ দিন যাবৎ অমানুষিক নির্যাতন : ৯৯৯ কল পেয়ে উদ্ধার করল পুলিশ Logo হবিগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্প মূল্যে চাল বিক্রয় শুরু : তদারকিতে খাদ্য বিভাগ Logo মাধবপুরে বাংলাদেশ প্রাঃ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাঃ বিদ্যাঃ সমিতির যৌথ ইফতার মাহফিল Logo চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ ছিদ্দিকীর উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ Logo বঙ্গবন্ধু পরিষদ রংপুর জেলার মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন

মাধবপুরে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা, অভিযোগ দায়ের

  • মোঃ এরশাদ আলী :
  • আপডেট সময় ০৪:২৪:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০২৩
  • ৩৯ বার পড়া হয়েছে

হবিগঞ্জের মাধবপুরে এক মালয়েশিয়া প্রবাসীর বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। গতকাল রবিবার (১৯ নভেম্বর) মামলাটি দায়ের করেছেন ভিক্টিমের মা লিপি আক্তার।

ভিক্টিম আহম্মদপুর গ্রামের আঞ্জব আলীর মেয়ে।আঞ্জব আলী দীর্ঘ ১২/১৩ বছর ধরে মালয়েশিয়ায় প্রবাস জীবন যাপন করছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,  রবিবার বিকাল ৩ টার দিকে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের নিজ বাড়ির বসতঘরের বারান্দায় ভিকটিম ওই প্রতিবন্ধী মেয়েটিকে বসিয়ে রেখে তার মা বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে যান।

এই সুযোগে পার্শ্ববর্তী বৈষ্টবপুর গ্রামের মরতুজ আলীর ছেলে লিয়াকত আলী (৫০) এসে মেয়েটিকে টেনেহিঁচড়ে বসতঘরের একটি বাথরুমে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এসময় মেয়ের মা গোসল শেষে ফিরে এসে মেয়েকে বারান্দায় না দেখে ডাকাডাকি করতে থাকেন।একপর্যায়ে বাথরুম থেকে ধস্তাধস্তির শব্দ শুনতে পেয়ে সেখানে ছুটে গেলে লিয়াকত দৌড়ে পালিয়ে যায়।কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আব্দুল কাদের জানান, ‘ওই মেয়েটি ঠিক মতো ঘুচিয়ে কথা বলতে পারে না।

মাঝেমধ্যে একটুআধটু কথা বললেও মনের ভাব প্রকাশ করতে পারে না।
লিয়াকত প্রায় সময়ই আঞ্জব আলীর বাড়িতে আসা যাওয়া করতো।

মেয়েটি লিয়াকতকে দাদা ডাকতো।’ তিনি আরো জানান, ‘আঞ্জব আলী দীর্ঘদিন ধরে মালয়েশিয়ায় রয়েছেন। ৪ মাস আগে তার বড় ছেলে রুবেল মিয়া (২২) কে মালয়েশিয়াতে নিয়ে গেছেন।

অপর ছেলে রানা মিয়া (১৮) রাজমিস্ত্রীর কাজ করেন।ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন না।’
ঘটনার পর থেকে লিয়াকত পলাতক।

ভিকটিমের নানা আব্দুল হাশিমের সাথে কথা হয় মাধবপুর থানার ডিউটি অফিসারের রুমে।তিনি জানান, ‘সরল মনে লিয়াকতকে আমরা বিশ্বাস করেছিলাম।সে যে এমন দুঃশ্চরিত্র তা জানা ছিল না।’

মাধবপুর থানার ওসি রকিবুল ইসলাম খাঁন জানান, ‘তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।’

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন

মাধবপুরে এক বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা, অভিযোগ দায়ের

আপডেট সময় ০৪:২৪:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০২৩

হবিগঞ্জের মাধবপুরে এক মালয়েশিয়া প্রবাসীর বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মেয়েকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। গতকাল রবিবার (১৯ নভেম্বর) মামলাটি দায়ের করেছেন ভিক্টিমের মা লিপি আক্তার।

ভিক্টিম আহম্মদপুর গ্রামের আঞ্জব আলীর মেয়ে।আঞ্জব আলী দীর্ঘ ১২/১৩ বছর ধরে মালয়েশিয়ায় প্রবাস জীবন যাপন করছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,  রবিবার বিকাল ৩ টার দিকে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের নিজ বাড়ির বসতঘরের বারান্দায় ভিকটিম ওই প্রতিবন্ধী মেয়েটিকে বসিয়ে রেখে তার মা বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে যান।

এই সুযোগে পার্শ্ববর্তী বৈষ্টবপুর গ্রামের মরতুজ আলীর ছেলে লিয়াকত আলী (৫০) এসে মেয়েটিকে টেনেহিঁচড়ে বসতঘরের একটি বাথরুমে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়।

এসময় মেয়ের মা গোসল শেষে ফিরে এসে মেয়েকে বারান্দায় না দেখে ডাকাডাকি করতে থাকেন।একপর্যায়ে বাথরুম থেকে ধস্তাধস্তির শব্দ শুনতে পেয়ে সেখানে ছুটে গেলে লিয়াকত দৌড়ে পালিয়ে যায়।কাশিমনগর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আব্দুল কাদের জানান, ‘ওই মেয়েটি ঠিক মতো ঘুচিয়ে কথা বলতে পারে না।

মাঝেমধ্যে একটুআধটু কথা বললেও মনের ভাব প্রকাশ করতে পারে না।
লিয়াকত প্রায় সময়ই আঞ্জব আলীর বাড়িতে আসা যাওয়া করতো।

মেয়েটি লিয়াকতকে দাদা ডাকতো।’ তিনি আরো জানান, ‘আঞ্জব আলী দীর্ঘদিন ধরে মালয়েশিয়ায় রয়েছেন। ৪ মাস আগে তার বড় ছেলে রুবেল মিয়া (২২) কে মালয়েশিয়াতে নিয়ে গেছেন।

অপর ছেলে রানা মিয়া (১৮) রাজমিস্ত্রীর কাজ করেন।ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন না।’
ঘটনার পর থেকে লিয়াকত পলাতক।

ভিকটিমের নানা আব্দুল হাশিমের সাথে কথা হয় মাধবপুর থানার ডিউটি অফিসারের রুমে।তিনি জানান, ‘সরল মনে লিয়াকতকে আমরা বিশ্বাস করেছিলাম।সে যে এমন দুঃশ্চরিত্র তা জানা ছিল না।’

মাধবপুর থানার ওসি রকিবুল ইসলাম খাঁন জানান, ‘তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।’