হবিগঞ্জ ০২:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo চা-বাগান এলাকায় এই প্রথম বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন করলেন ব্যারিস্টার সুমন Logo এবার ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের জন্য নতুন রূপে চুনারুঘাটের পর্যটন এলাকাকে সাজালেন ব্যারিস্টার সুমন Logo সাম্যের ঈদ চাই !!  মো: মাহমুদ হাসান  Logo নিজের পালিত গরু এমপি সুমনকে উপহার দিলেন এক ভক্ত Logo শায়েস্তাগঞ্জে ইয়াবাসহ মুদি মাল ব্যবসায়ী গ্রেফতার Logo শ্রেষ্ঠ এএসআই চুনারুঘাট থানার মনির হোসেন Logo দ্বিতীয় গোপালগঞ্জে’ আওয়ামী বিরোধীদের উত্থানের নেপথ্যে কী? Logo চুনারুঘাটে আরো ৭১টি পরিবার পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর নতুন ঘর Logo চুনারুঘাটে ৭দিন ব্যাপী ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন  Logo ৪০ বছরের পুরাতন খোয়াই নদীতে স্পিডবোট ভাসালেন ব্যারিস্টার সুমন

খেলা নিয়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন বুনছেন বানিয়াচংয়ের মেয়ে রলি

বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ক্রিকেট। আর সেই খেলা নিয়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন বুনছেন বানিয়াচং উপজেলা সদরের লাহুমা চৌধুরী রলি। রলি উপজেলা সদরের ৪ নম্বর দক্ষিণ -পশ্চিম ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত বাসিয়াপাড়া মহল্লার আজমল হোসেন চৌধুরীর মেয়ে।চার ভাই বোনের মধ্যে রলি পরিবারের একমাত্র মেয়ে।পরিবারের একমাত্র মেয়ে সন্তান হয়ে ও ক্রিকেট খেলার প্রতি তাঁর গভীর অনুরাগ। তাঁর ভবিষ্যত পরিকল্পনা বাংলাদেশের জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের হয়ে খেলায় অংশগ্রহণ করা এবং বানিয়াচংয়ের মুখ উজ্জ্বল করা।

ছোটবেলা থেকেই লাহুমা চৌধুরী রলি’র খেলাধুলার প্রতি অধীর আগ্রহ ছিলো।স্হানীয় এলাকাবাসী জানায়,প্রাথমিকে পড়াশোনা চালানোর সময় রলিতে একহাতে বল এবং অন্য হাতে ব্যাট নিয়ে খেলতে দেখা যেতো।বিদ্যালয় ছুটির পরপরই তাঁকে তাঁর বাড়ির পাশের ছোট একটি মাঠে ক্রিকেট খেলতে দেখা যেতো।বড় ভাই এবং এলাকার সহপাঠীদের সাথে ক্রিকেট খেলায় সারাক্ষণ ব্যস্ত থাকতো সে।
অপরদিকে শুধু ক্রিকেট নয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ফুটবল,ভলিবল, হ্যান্ডবল খেলায় অংশগ্রহণ করেছে সে।মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা থাকাকালীন অনেকবার দৌড় প্রতিযোগিতায় পুরস্কার অর্জন করার খ্যাতি রয়েছে রলির।আঠারো বছর বয়সী এই কিশোরী বানিয়াচং উপজেলার স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বানিয়াচং সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়।সর্বপ্রথম ক্রিকেট নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে রলি। সেখান থেকেই হবিগঞ্জ নারী ক্রিকেটের কোচ মঈন উদ্দিন সাচ্চু তালুকদারের মাধ্যমে নিজ জেলা হবিগঞ্জ আধুনিক স্টেডিয়ামে খেলার সুযোগ পায় রলি।প্রকৃত পক্ষে রলির ক্রিকেট খেলার হাতেখড়ি হয়েছিল মঈন উদ্দিন তালুকদার সাচ্চুর হাত ধরেই। যার অধম প্রচেষ্টা আর রলির নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস আর শ্রমের মাধ্যমে তাঁর ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সূচনা হয়।এর কয়েকদিন পরই বিকেএসপির প্রমিলা শীর্ষক উন্নয়ন প্রকল্প কর্মসূচি ২০২০-২১ কার্যক্রম শুরু হয়। মা-বাবা এবং শিক্ষক মঈন উদ্দিন তালুকদার সাচ্চুর অনুপ্রেরণায় রলি উক্ত কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। সারা বাংলাদেশ থেকে ২০০ জন প্রতিভাবান খেলোয়াড় বাছাই করে ৩ মাসের ১ টা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়। ৩ মাসের ক্যাম্পে ২০০ জন খেলোয়াড়দের মধ্যে ১০০ জন প্রতিভাবান খেলোয়াড়কে ৬ মাসের ক্যাম্পের জন্য বাছাই করা হয়।সেই ক্যাম্পে রলি সুযোগ পায়।লাহুমা চৌধুরী রলিই ছিলেন হবিগঞ্জ জেলার একমাত্র ক্রিকেট ইভেন্টের বিকেএসপি বাছাই কার্যক্রমের একজন খেলোয়াড়।তাছাড়া অনূর্ধ্ব -১৭ ১ম বাছাই কার্যক্রমে একমাত্র রলি হবিগন্জ জেলা থেকে সুযোগ পায় এবং পরবর্তী ২য় পর্যায়ের বাছাই ক্রমে অংশগ্রহণ করে। তাছাড়া, ২০২১ এর নভেম্বর এ অনুষ্ঠিত মেয়েদের ঢাকা প্রথম বিভাগ কোয়ালিফাইং টুর্নামেন্টে বুড়িগঙ্গা উইমেন্স ক্রিকেট একাডেমি তে ওপেনার এবং উইকেটরক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে রলি।আর এই টুর্নামেন্টে তাঁদের টিম সেমিফাইনাল উঠেছিলো।এ ব্যাপারে কিশোরী লাহুমা চৌধুরী রলি বলেন,ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট খেলাকে বুকে ধারণ করে নিয়েছি। কঠোর পরিশ্রম এবং আমার পরিবারের সাপোর্ট না থাকলে আমার কখনোই ক্রিকেট খেলা নিয়ে স্বপ্ন বুনা সম্ভব হতো না। আমি ভবিষ্যতে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখি। রলির এই সাফল্যে তাঁর এলাকবাসী, বন্ধু -বান্ধব থেকে শুরু করে সবাই আনন্দিত। রলি যেনো ক্রিকেট খেলে ক্যারিয়ার গড়ার মাধ্যমে বানিয়াচংয়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে সেজন্য তাঁর মা-বাবা সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

চা-বাগান এলাকায় এই প্রথম বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন করলেন ব্যারিস্টার সুমন

খেলা নিয়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন বুনছেন বানিয়াচংয়ের মেয়ে রলি

আপডেট সময় ০৯:০৩:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ জুলাই ২০২২

বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা ক্রিকেট। আর সেই খেলা নিয়ে নিজের ক্যারিয়ার গড়ার স্বপ্ন বুনছেন বানিয়াচং উপজেলা সদরের লাহুমা চৌধুরী রলি। রলি উপজেলা সদরের ৪ নম্বর দক্ষিণ -পশ্চিম ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত বাসিয়াপাড়া মহল্লার আজমল হোসেন চৌধুরীর মেয়ে।চার ভাই বোনের মধ্যে রলি পরিবারের একমাত্র মেয়ে।পরিবারের একমাত্র মেয়ে সন্তান হয়ে ও ক্রিকেট খেলার প্রতি তাঁর গভীর অনুরাগ। তাঁর ভবিষ্যত পরিকল্পনা বাংলাদেশের জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের হয়ে খেলায় অংশগ্রহণ করা এবং বানিয়াচংয়ের মুখ উজ্জ্বল করা।

ছোটবেলা থেকেই লাহুমা চৌধুরী রলি’র খেলাধুলার প্রতি অধীর আগ্রহ ছিলো।স্হানীয় এলাকাবাসী জানায়,প্রাথমিকে পড়াশোনা চালানোর সময় রলিতে একহাতে বল এবং অন্য হাতে ব্যাট নিয়ে খেলতে দেখা যেতো।বিদ্যালয় ছুটির পরপরই তাঁকে তাঁর বাড়ির পাশের ছোট একটি মাঠে ক্রিকেট খেলতে দেখা যেতো।বড় ভাই এবং এলাকার সহপাঠীদের সাথে ক্রিকেট খেলায় সারাক্ষণ ব্যস্ত থাকতো সে।
অপরদিকে শুধু ক্রিকেট নয় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ফুটবল,ভলিবল, হ্যান্ডবল খেলায় অংশগ্রহণ করেছে সে।মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা থাকাকালীন অনেকবার দৌড় প্রতিযোগিতায় পুরস্কার অর্জন করার খ্যাতি রয়েছে রলির।আঠারো বছর বয়সী এই কিশোরী বানিয়াচং উপজেলার স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বানিয়াচং সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হয়।সর্বপ্রথম ক্রিকেট নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে রলি। সেখান থেকেই হবিগঞ্জ নারী ক্রিকেটের কোচ মঈন উদ্দিন সাচ্চু তালুকদারের মাধ্যমে নিজ জেলা হবিগঞ্জ আধুনিক স্টেডিয়ামে খেলার সুযোগ পায় রলি।প্রকৃত পক্ষে রলির ক্রিকেট খেলার হাতেখড়ি হয়েছিল মঈন উদ্দিন তালুকদার সাচ্চুর হাত ধরেই। যার অধম প্রচেষ্টা আর রলির নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাস আর শ্রমের মাধ্যমে তাঁর ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সূচনা হয়।এর কয়েকদিন পরই বিকেএসপির প্রমিলা শীর্ষক উন্নয়ন প্রকল্প কর্মসূচি ২০২০-২১ কার্যক্রম শুরু হয়। মা-বাবা এবং শিক্ষক মঈন উদ্দিন তালুকদার সাচ্চুর অনুপ্রেরণায় রলি উক্ত কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। সারা বাংলাদেশ থেকে ২০০ জন প্রতিভাবান খেলোয়াড় বাছাই করে ৩ মাসের ১ টা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়। ৩ মাসের ক্যাম্পে ২০০ জন খেলোয়াড়দের মধ্যে ১০০ জন প্রতিভাবান খেলোয়াড়কে ৬ মাসের ক্যাম্পের জন্য বাছাই করা হয়।সেই ক্যাম্পে রলি সুযোগ পায়।লাহুমা চৌধুরী রলিই ছিলেন হবিগঞ্জ জেলার একমাত্র ক্রিকেট ইভেন্টের বিকেএসপি বাছাই কার্যক্রমের একজন খেলোয়াড়।তাছাড়া অনূর্ধ্ব -১৭ ১ম বাছাই কার্যক্রমে একমাত্র রলি হবিগন্জ জেলা থেকে সুযোগ পায় এবং পরবর্তী ২য় পর্যায়ের বাছাই ক্রমে অংশগ্রহণ করে। তাছাড়া, ২০২১ এর নভেম্বর এ অনুষ্ঠিত মেয়েদের ঢাকা প্রথম বিভাগ কোয়ালিফাইং টুর্নামেন্টে বুড়িগঙ্গা উইমেন্স ক্রিকেট একাডেমি তে ওপেনার এবং উইকেটরক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে রলি।আর এই টুর্নামেন্টে তাঁদের টিম সেমিফাইনাল উঠেছিলো।এ ব্যাপারে কিশোরী লাহুমা চৌধুরী রলি বলেন,ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট খেলাকে বুকে ধারণ করে নিয়েছি। কঠোর পরিশ্রম এবং আমার পরিবারের সাপোর্ট না থাকলে আমার কখনোই ক্রিকেট খেলা নিয়ে স্বপ্ন বুনা সম্ভব হতো না। আমি ভবিষ্যতে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখি। রলির এই সাফল্যে তাঁর এলাকবাসী, বন্ধু -বান্ধব থেকে শুরু করে সবাই আনন্দিত। রলি যেনো ক্রিকেট খেলে ক্যারিয়ার গড়ার মাধ্যমে বানিয়াচংয়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে সেজন্য তাঁর মা-বাবা সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।