হবিগঞ্জ ০৫:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন Logo আইনশৃঙ্খলায় অবদান রাক্ষায় জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার ওসি হিল্লোল রায় Logo চুনারুঘাটে এফ.এন ফাউন্ডেশন ইউকে’র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল Logo ফ্রেন্ডস ফাউন্ডেশন ও এসএসসি’৯১ ব্যাচ সিলেট বিভাগের মানবিক কার্যক্রম সম্পন্ন Logo চুনারুঘাটে যৌতুকের দাবীতে গর্ভবতী গৃহবধুকে ৫ দিন যাবৎ অমানুষিক নির্যাতন : ৯৯৯ কল পেয়ে উদ্ধার করল পুলিশ Logo হবিগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্প মূল্যে চাল বিক্রয় শুরু : তদারকিতে খাদ্য বিভাগ Logo মাধবপুরে বাংলাদেশ প্রাঃ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাঃ বিদ্যাঃ সমিতির যৌথ ইফতার মাহফিল Logo চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ ছিদ্দিকীর উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ Logo বঙ্গবন্ধু পরিষদ রংপুর জেলার মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন

জাতীয় স্বার্থে নদী রক্ষা করতেই হবে : ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী

  • এসএম মিজানঃ
  • আপডেট সময় ০৭:৫১:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ এপ্রিল ২০২২
  • ১৫৩ বার পড়া হয়েছে

ইলিশ সম্পদ রক্ষা, নদীর জীব বৈচিত্র্য রক্ষা, নদীর ভাঙ্গন রোধে চাঁদপুরে পদ্মা-মেঘনায় অবৈধ বালু উত্তোলন ও ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত নৌ-যান গুলোকে জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী। সেই সঙ্গে অপকার্যের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা হিসেবে গ্রেপ্তারের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২ পদ্মা-মেঘনা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন রোধে সরেজমিন পরিদর্শন কালে নির্দেশ দেন তিনি।

ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী বলেন, দেশের নদীগুলোতে ইলিশের যে অভয়ারণ্য রয়েছে তার মধ্যে একটি চাঁদপুরের মতলব উত্তরের ষাটনল থেকে চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার এলাকা। এর মধ্যে চাঁদপুরের নদী এলাকা রয়েছে ৭০ কিলোমিটার। এটি হচ্ছে ইলিশের সবচেয়ে বড় অভয়ারণ্য। মৎস্য বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন- এই এলাকায় অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের ফলে ইলিশের উৎপাদন কমে গেছে। সংশ্লিষ্টদের বক্তব্যগুলো শুনে পরিবেশ ও প্রতিবেশগত এবং আর্থসামাজিক ক্ষতির আর্থিক মূল্যমান নির্ধারণের সুপারিশ করেছে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন।

তিনি আরও বলেন, ইলিশ যদি একাবারে দিক পরিবর্তন করে ফেলে তাহলে আমরা ইলিশ থেকে বঞ্চিত হতে হবে এটি কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। যার এ ধরনের অবৈধ কাজ করতে সহযোগিতা করে তারা জাতির শত্রু। অবিলম্বে নদী থেকে তাদেরকে বিতাড়িত করতে হবে। পুলিশ, নৌপুলিশ, কোস্টগার্ড, বিআইডব্লিউটিএ সহ সবার সহযোগিতা নিয়ে বালু ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্তদের বাল্কহেড জব্দ করতে হবে। বালুর সঙ্গে সম্পৃক্ত সেসব নৌযান রয়েছে সেগুলো সব জব্দ করার জন্য আমি জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়েছি। তাদের লাইসেন্স আছে কি না সেগুলো পরীক্ষা করতে হবে। তারা অবৈধভাবে বালু তুলছিল না তাই তাদেরকে আইনানুয়ায়ী গ্রেপ্তার করার জন্য কমিশনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিআইডব্লিউটিএ কে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এখানে যেহেতু পরিবেশ বিঘিœত হয়েছিল তাই অধিদপ্তরকে পরিবেশ আদালত চালু করার নির্দেশ দিয়েছি। এটি করার জন্য তাদেরকে কোন অনুমতি নিতে হবে না। বর্তমানে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে কোস্ট গার্ড ও নৌপুলিশের অব্যাহত অভিযানের ফলে অবৈধ বালু খেকো ড্রেজারের হাত হতে এ অঞ্চল মুক্ত হয়েছে।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফিশারিজ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. মনিরুল ইসলাম বলেন যে, পদ্মা-মেঘনা নদীতে পরিবেশ ও প্রতিবেশের জন্য পদ্মা-মেঘনা ইলিশের গরমৎধঃরড়হ ংঢ়ধহিরহম, নৎববফরহম ক্ষেত্রে প্রায় ১০০কিমি জুড়ে বিস্তৃত। এরা প্লাংক্টন খেয়ে বেঁচে থাকে। এতে অসংখ্য ড্রেজারের মাঝে ইলিশ মাইগ্রেট করতে পারে না। নদীতে প্লাংক্টন লেভেল অভিলম্বে পরীক্ষা করা প্রয়োজন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশগত এবং আর্থসমাজিক ক্ষতির আর্থিক মূল্যমান নির্ধারণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রতিবেশগত এবং আর্থসামাজিক ক্ষতির জন্য ব্যক্তি বা গোষ্ঠিদের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ আদায়ের মামলা দায়ের করবে। তফসিল এলাকার বাইরে বালু তোলা ও পরিবহন কার্যে নিয়োজিত ড্রেজার ও কার্গো জব্দ করতে হবে। পরিবেশ বিঘœ/নষ্ট করার জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ ও পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা ১৯৯৭ অনুযায়ী মামলা ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আপরাধীদের আটক, কারাদন্ড, জরিমানা ইত্যাদি দন্ড প্রদান করতে হবে। নৌ-পথ ক্ষতি করা, নৌচলাচলে বিঘœ ঘটানো ইত্যাদি অপরাধের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

এ ছাড়া সরেজমিন পরিদর্শনে উপস্থিত ছিলেন চাদপুরের জেলা প্রশাসক,ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফিশারিজ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. মনিরুল ইসলাম, প্রাণি বিজ্ঞান সমিতির সভাপতি জনাব খান হাবিবুর রহমান। পরিদর্শন কালে পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিআইডব্লিউটিএ, পরিবেশ অধিদপ্তর, মৎস্য গবেষণা ইনিস্টিটিউট, মৎস্য অধিদপ্তর এর কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের জন্য কোস্ট গার্ড, নৌপুলিশ, জেলা পুলিশ, চাঁদপুর উপস্থিত ছিলেন। সার্বিক সমন্বয়ের দায়িত্বে ছিলেন জেলা প্রশাসন, চাঁদপুর ও জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য গত ২২ মার্চ ২০২২ কমিশনের নির্দেশনায় নদীতে বালুখেকোদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বর্তমানে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে কোস্ট গার্ড ও নৌপুলিশের অব্যাহত অভিযানের ফলে অবৈধ বালু খেকো ড্রেজারের হাত হতে এ অঞ্চল মুক্ত হয়েছে।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন

জাতীয় স্বার্থে নদী রক্ষা করতেই হবে : ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী

আপডেট সময় ০৭:৫১:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ এপ্রিল ২০২২

ইলিশ সম্পদ রক্ষা, নদীর জীব বৈচিত্র্য রক্ষা, নদীর ভাঙ্গন রোধে চাঁদপুরে পদ্মা-মেঘনায় অবৈধ বালু উত্তোলন ও ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত নৌ-যান গুলোকে জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছেন জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী। সেই সঙ্গে অপকার্যের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা হিসেবে গ্রেপ্তারের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার, ৩১ মার্চ ২০২২ পদ্মা-মেঘনা নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন রোধে সরেজমিন পরিদর্শন কালে নির্দেশ দেন তিনি।

ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী বলেন, দেশের নদীগুলোতে ইলিশের যে অভয়ারণ্য রয়েছে তার মধ্যে একটি চাঁদপুরের মতলব উত্তরের ষাটনল থেকে চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার এলাকা। এর মধ্যে চাঁদপুরের নদী এলাকা রয়েছে ৭০ কিলোমিটার। এটি হচ্ছে ইলিশের সবচেয়ে বড় অভয়ারণ্য। মৎস্য বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন- এই এলাকায় অপরিকল্পিত বালু উত্তোলনের ফলে ইলিশের উৎপাদন কমে গেছে। সংশ্লিষ্টদের বক্তব্যগুলো শুনে পরিবেশ ও প্রতিবেশগত এবং আর্থসামাজিক ক্ষতির আর্থিক মূল্যমান নির্ধারণের সুপারিশ করেছে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন।

তিনি আরও বলেন, ইলিশ যদি একাবারে দিক পরিবর্তন করে ফেলে তাহলে আমরা ইলিশ থেকে বঞ্চিত হতে হবে এটি কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। যার এ ধরনের অবৈধ কাজ করতে সহযোগিতা করে তারা জাতির শত্রু। অবিলম্বে নদী থেকে তাদেরকে বিতাড়িত করতে হবে। পুলিশ, নৌপুলিশ, কোস্টগার্ড, বিআইডব্লিউটিএ সহ সবার সহযোগিতা নিয়ে বালু ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্তদের বাল্কহেড জব্দ করতে হবে। বালুর সঙ্গে সম্পৃক্ত সেসব নৌযান রয়েছে সেগুলো সব জব্দ করার জন্য আমি জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়েছি। তাদের লাইসেন্স আছে কি না সেগুলো পরীক্ষা করতে হবে। তারা অবৈধভাবে বালু তুলছিল না তাই তাদেরকে আইনানুয়ায়ী গ্রেপ্তার করার জন্য কমিশনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিআইডব্লিউটিএ কে অ্যাকশন নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এখানে যেহেতু পরিবেশ বিঘিœত হয়েছিল তাই অধিদপ্তরকে পরিবেশ আদালত চালু করার নির্দেশ দিয়েছি। এটি করার জন্য তাদেরকে কোন অনুমতি নিতে হবে না। বর্তমানে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে কোস্ট গার্ড ও নৌপুলিশের অব্যাহত অভিযানের ফলে অবৈধ বালু খেকো ড্রেজারের হাত হতে এ অঞ্চল মুক্ত হয়েছে।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফিশারিজ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. মনিরুল ইসলাম বলেন যে, পদ্মা-মেঘনা নদীতে পরিবেশ ও প্রতিবেশের জন্য পদ্মা-মেঘনা ইলিশের গরমৎধঃরড়হ ংঢ়ধহিরহম, নৎববফরহম ক্ষেত্রে প্রায় ১০০কিমি জুড়ে বিস্তৃত। এরা প্লাংক্টন খেয়ে বেঁচে থাকে। এতে অসংখ্য ড্রেজারের মাঝে ইলিশ মাইগ্রেট করতে পারে না। নদীতে প্লাংক্টন লেভেল অভিলম্বে পরীক্ষা করা প্রয়োজন। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে পরিবেশ ও প্রতিবেশগত এবং আর্থসমাজিক ক্ষতির আর্থিক মূল্যমান নির্ধারণ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রতিবেশগত এবং আর্থসামাজিক ক্ষতির জন্য ব্যক্তি বা গোষ্ঠিদের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ আদায়ের মামলা দায়ের করবে। তফসিল এলাকার বাইরে বালু তোলা ও পরিবহন কার্যে নিয়োজিত ড্রেজার ও কার্গো জব্দ করতে হবে। পরিবেশ বিঘœ/নষ্ট করার জন্য পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ ও পরিবেশ সংরক্ষণ বিধিমালা ১৯৯৭ অনুযায়ী মামলা ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আপরাধীদের আটক, কারাদন্ড, জরিমানা ইত্যাদি দন্ড প্রদান করতে হবে। নৌ-পথ ক্ষতি করা, নৌচলাচলে বিঘœ ঘটানো ইত্যাদি অপরাধের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।

এ ছাড়া সরেজমিন পরিদর্শনে উপস্থিত ছিলেন চাদপুরের জেলা প্রশাসক,ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফিশারিজ ডিপার্টমেন্টের চেয়ারম্যান ড. মনিরুল ইসলাম, প্রাণি বিজ্ঞান সমিতির সভাপতি জনাব খান হাবিবুর রহমান। পরিদর্শন কালে পানি উন্নয়ন বোর্ড, বিআইডব্লিউটিএ, পরিবেশ অধিদপ্তর, মৎস্য গবেষণা ইনিস্টিটিউট, মৎস্য অধিদপ্তর এর কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের জন্য কোস্ট গার্ড, নৌপুলিশ, জেলা পুলিশ, চাঁদপুর উপস্থিত ছিলেন। সার্বিক সমন্বয়ের দায়িত্বে ছিলেন জেলা প্রশাসন, চাঁদপুর ও জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য গত ২২ মার্চ ২০২২ কমিশনের নির্দেশনায় নদীতে বালুখেকোদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বর্তমানে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে কোস্ট গার্ড ও নৌপুলিশের অব্যাহত অভিযানের ফলে অবৈধ বালু খেকো ড্রেজারের হাত হতে এ অঞ্চল মুক্ত হয়েছে।