হবিগঞ্জ ০২:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুরের ওসি রকিবুল ইসলাম Logo বাহুবলে মুদ্দত আলী ও তার পরিবারের উপর হয়রানীমূলক হত্যা মামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে স্থানীয়দের মানববন্ধন Logo চুনারুঘাটে গাজীউর রহমান লন্ডনীর উদ্যোগে ৩শ’ চক্ষু রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা ও ঔষধ বিতরণ  Logo মাধবপুরে কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও মেধাবৃত্তি প্রদান Logo চুনারুঘাটে উবাহাটা ইউনিয়নবাসীর সাথে ব্যারিস্টার সুমন এমপি’র মতবিনিময় Logo চুনারুঘাটের রাঁণীগাও ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে মত বিনিময় করেছেন ব্যারিস্টার সুমন এমপি Logo বাহুবল প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি গঠন: সভাপতি কুটি, সম্পাদক মাসুম Logo রেড সেল ইন বাংলাদেশের ৩য় প্রতিষ্টা বার্ষিকী অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে দক্ষিণা চরণ স্মৃতি টি-২০ ক্রিকেট লক্ষ টাকার ফাইনাল টুর্নামেন্ট Logo চুনারুঘাট থানা পুলিশের অভিযানে মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

গাড়ির নামে বীমা করে ভোগান্তিতে ব্যারিস্টার সুমন, ইন্স্যুরেন্স এজেন্ট লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ !

  • আলোকিত ডেস্ক:
  • আপডেট সময় ১১:১৫:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ মার্চ ২০২২
  • ১৭৭ বার পড়া হয়েছে

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। পেশায় একজন আইনজীবী ও খেলাধুলা প্রেমিক মানুষ। তাই নিজ নামে গড়ে তুলেছেন একটি ফুটবল একাডেমিও। তাঁর অধিকাংশ সময়ই কাটে খেলাধুলা ও মানুষকে সহযোগিতা করা। এছাড়াও ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের অপরাধ ও অনিয়ম তুলে ধরেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সম্প্রতি তিনি পূবালী ব্যাংক থেকে ৪০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে একটি গাড়ি কিনেছিলেন । নিয়ম অনুযায়ী ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে করেছেন ইন্স্যুরেন্সও। সম্প্রতি গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হলে সংশ্লিষ্ট গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কাছে ক্ষতিপূরণে ক্লেইম করেন।

বিপত্তি বাধে এখানে। প্রায় তিন মাস ঘুরেও গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি থেকে সাড়া পাননি এই আইনজীবী। অতঃপর বাধ্য হয়ে কোম্পানির অফিসে যান তিনি। অফিসে গিয়ে জানতে পারেন ইন্স্যুরেন্সে তার গাড়ি বাবদ জমা পড়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার টাকা। বাকি প্রায় লাখ খানিক টাকার হদিস নেই। বুঝতে বাকি রইল না যে ইন্স্যুরেন্স এজেন্ট এই টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এপ্রেক্ষিতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে লাইভে কথা বলেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের সাবেক এই কৌঁসুলি। এসময় বীমা কোম্পানির দালাল, ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তিতে ভোগান্তির বিষয়গুলো তুলে ধরেন তিনি।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, পৃথিবীর সব ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলো যেখানে দিন দিন বড় হচ্ছে, আমাদের দেশের বীমা কোম্পানিগুলো সেখানে খারাপ পার্ফরমেন্সের পসরা সাজিয়ে বসেছে। এসব নাম সবস্ব কোম্পানিতে পরিণত হচ্ছে। এদের কার্যক্রম এতো খারাপ যে এক সপ্তাহ আগে আমাকে কোম্পানি থেকে ফোন করে বলা হয় আমার ক্লেইম করা বিষয়টি রেডি, আসলেই পেয়ে যাব। অথচ আজ ৮ দিন পর এসেও বিষয়টির সুরাহা হয়নি।

এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর পাননি উল্লেখ করে তিনি বলেন, এদের টেন্ডেন্সি হচ্ছে, এমনভাবে গ্রাহককে জ্বালা-যন্ত্রণা দিবো যেন আর কখনো কোন ক্লেইম নিয়ে না আসো। ইন্স্যুরেন্স মানে হচ্ছে একবার টাকা জমা হয়ে গেল তো, আর ফেরতের নাম নাই।

নিজের সমস্যা সাধারণ তুলে ধরেন না উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে কখনো কথা বলি না, কিন্তু এ বিষয়টি তুলে ধরা উচিত বলে মনে করেছি। কারণ বহু সাধারণ মানুষ আছেন যারা ইন্স্যুরেন্সের খপ্পরে পড়ে নানা ভাবে হয়রানির শিকার হয়েছেন।

একজন আইনজীবীকে এভাবে ভোগান্তির শিকার হতে হলে সাধারণ মানুষের অবস্থা কি হয়রানিমূলক হতে পারে সেটা বুঝতে আর বাকি থাকে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। এসময় ফারইস্ট ও ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ম্যানেজমেন্ট কর্তৃক হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগের বিষয়টিও তুলে ধরেন তিনি।

পরিশেষে বীমা কোম্পানির আচরণ সহ্য করার মতো না উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, সরকারের কাছে দাবি জানাই, বীমা কোম্পানির নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ যেন গ্রাহককে হয়রানি করা এসব ইন্স্যুরেন্সে কোম্পানিগুলোর দিকে নজরদারি বৃদ্ধি করেন এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

সুত্র: লয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ.কম।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুরের ওসি রকিবুল ইসলাম

গাড়ির নামে বীমা করে ভোগান্তিতে ব্যারিস্টার সুমন, ইন্স্যুরেন্স এজেন্ট লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ !

আপডেট সময় ১১:১৫:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ মার্চ ২০২২

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। পেশায় একজন আইনজীবী ও খেলাধুলা প্রেমিক মানুষ। তাই নিজ নামে গড়ে তুলেছেন একটি ফুটবল একাডেমিও। তাঁর অধিকাংশ সময়ই কাটে খেলাধুলা ও মানুষকে সহযোগিতা করা। এছাড়াও ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের অপরাধ ও অনিয়ম তুলে ধরেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সম্প্রতি তিনি পূবালী ব্যাংক থেকে ৪০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে একটি গাড়ি কিনেছিলেন । নিয়ম অনুযায়ী ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে করেছেন ইন্স্যুরেন্সও। সম্প্রতি গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হলে সংশ্লিষ্ট গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কাছে ক্ষতিপূরণে ক্লেইম করেন।

বিপত্তি বাধে এখানে। প্রায় তিন মাস ঘুরেও গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি থেকে সাড়া পাননি এই আইনজীবী। অতঃপর বাধ্য হয়ে কোম্পানির অফিসে যান তিনি। অফিসে গিয়ে জানতে পারেন ইন্স্যুরেন্সে তার গাড়ি বাবদ জমা পড়েছে ১ লাখ ৫৬ হাজার টাকা। বাকি প্রায় লাখ খানিক টাকার হদিস নেই। বুঝতে বাকি রইল না যে ইন্স্যুরেন্স এজেন্ট এই টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এপ্রেক্ষিতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে লাইভে কথা বলেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের সাবেক এই কৌঁসুলি। এসময় বীমা কোম্পানির দালাল, ক্ষতিপূরণ প্রাপ্তিতে ভোগান্তির বিষয়গুলো তুলে ধরেন তিনি।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, পৃথিবীর সব ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিগুলো যেখানে দিন দিন বড় হচ্ছে, আমাদের দেশের বীমা কোম্পানিগুলো সেখানে খারাপ পার্ফরমেন্সের পসরা সাজিয়ে বসেছে। এসব নাম সবস্ব কোম্পানিতে পরিণত হচ্ছে। এদের কার্যক্রম এতো খারাপ যে এক সপ্তাহ আগে আমাকে কোম্পানি থেকে ফোন করে বলা হয় আমার ক্লেইম করা বিষয়টি রেডি, আসলেই পেয়ে যাব। অথচ আজ ৮ দিন পর এসেও বিষয়টির সুরাহা হয়নি।

এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে কোম্পানির পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর পাননি উল্লেখ করে তিনি বলেন, এদের টেন্ডেন্সি হচ্ছে, এমনভাবে গ্রাহককে জ্বালা-যন্ত্রণা দিবো যেন আর কখনো কোন ক্লেইম নিয়ে না আসো। ইন্স্যুরেন্স মানে হচ্ছে একবার টাকা জমা হয়ে গেল তো, আর ফেরতের নাম নাই।

নিজের সমস্যা সাধারণ তুলে ধরেন না উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, ব্যক্তিগত সমস্যা নিয়ে কখনো কথা বলি না, কিন্তু এ বিষয়টি তুলে ধরা উচিত বলে মনে করেছি। কারণ বহু সাধারণ মানুষ আছেন যারা ইন্স্যুরেন্সের খপ্পরে পড়ে নানা ভাবে হয়রানির শিকার হয়েছেন।

একজন আইনজীবীকে এভাবে ভোগান্তির শিকার হতে হলে সাধারণ মানুষের অবস্থা কি হয়রানিমূলক হতে পারে সেটা বুঝতে আর বাকি থাকে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। এসময় ফারইস্ট ও ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ম্যানেজমেন্ট কর্তৃক হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগের বিষয়টিও তুলে ধরেন তিনি।

পরিশেষে বীমা কোম্পানির আচরণ সহ্য করার মতো না উল্লেখ করে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, সরকারের কাছে দাবি জানাই, বীমা কোম্পানির নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ যেন গ্রাহককে হয়রানি করা এসব ইন্স্যুরেন্সে কোম্পানিগুলোর দিকে নজরদারি বৃদ্ধি করেন এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

সুত্র: লয়ার্স ক্লাব বাংলাদেশ.কম।