হবিগঞ্জ ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন Logo আইনশৃঙ্খলায় অবদান রাক্ষায় জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার ওসি হিল্লোল রায় Logo চুনারুঘাটে এফ.এন ফাউন্ডেশন ইউকে’র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল Logo ফ্রেন্ডস ফাউন্ডেশন ও এসএসসি’৯১ ব্যাচ সিলেট বিভাগের মানবিক কার্যক্রম সম্পন্ন Logo চুনারুঘাটে যৌতুকের দাবীতে গর্ভবতী গৃহবধুকে ৫ দিন যাবৎ অমানুষিক নির্যাতন : ৯৯৯ কল পেয়ে উদ্ধার করল পুলিশ Logo হবিগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্প মূল্যে চাল বিক্রয় শুরু : তদারকিতে খাদ্য বিভাগ Logo মাধবপুরে বাংলাদেশ প্রাঃ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাঃ বিদ্যাঃ সমিতির যৌথ ইফতার মাহফিল Logo চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ ছিদ্দিকীর উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ Logo বঙ্গবন্ধু পরিষদ রংপুর জেলার মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন

বানিয়াচংয়ে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঁঠাল

বানিয়াচংয়ে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঁঠাল। গ্রীষ্মকালীন মৌসুমের অন্যতম ও জনপ্রিয় ফল হলো কাঁঠাল। উপজেলা সদরের স্হানীয় বাজারগুলোতে এখন পর্যন্ত কাঁঠাল না দেখা গেলে ও আগামী এক-দেড় মাসের মধ্যে বাজারে কাঁঠালের কেনা-বেচার ধুম পড়বে বলে জানিয়েছেন স্হানীয় ফল ব্যবসায়ীরা।চিকিৎসকদের মতে, কাঁঠালে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন-সি, ভিটামিন-বি, ভিটামিন-ই, ক্যালসিয়াম, ফলিক এসিড রয়েছে। টাটকা ফল পটাশিয়াম, ম্যাগনোশিয়াম এবং আয়রনের একটি ভাল উৎস। পাঁকা কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণ আঁশ রয়েছে। ফলে পাঁকা কাঁঠাল খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। সকল বয়সী মানুষই কমবেশি কাঁঠাল খেতে পছন্দ করে। কাঁঠালের বিচি (বীজ) প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং পুষ্টিকর। এর বিচি মাংস ও সবজির সঙ্গে রান্না করে খাওয়া যায়।কাঁঠাল মিষ্টি রসালো ও স্বাদে অতুলনীয় হওয়ায় বাজারে এর চাহিদা অনেক।সামনে পহেলা বৈশাখ ও রমজান কে সামনে রেখে বেশ চাহিদা ও রয়েছে এই মৌসুমি ফল কাঁঠালের। সরেজমিনে বানিয়াচং উপজেলা সদরের আমিরখানী,চানপাড়া,কুতুবখানী,শেখেরমহল্লাসহ উপজেলার অধিকাংশ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে বাড়ির আঙ্গিনায় এবং বাণিজ্যিক উদ্দ্যেশ্যে পরিকল্পিতভাবে সৃজন করা হয়েছে জাতীয় ফল কাঁঠাল বাগান। এক একটি গাছে ৩০-১০০টির মতো কাঁঠাল রয়েছে। কাঁঠাল গাছগুলো যেনো এক প্রকার প্রকৃতির রুপ দিয়ে সাজানো হয়েছে।বৃষ্টির কারণে ফল বড় হতে না পারলেও এখন পর্যন্ত গাছে কাঁঠালের যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে তাতে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে ফলন ভাল হবে বলে মনে করছেন বাগান মালিকরা।যদিও এখনও পাঁকা কাঁঠাল বাজারে আসতে শুরু করেনি তারপরও এক মাস পরেই লোভনীয় কাঁঠাল ফলের গন্ধে মুখরিত হয়ে উঠবে স্থানীয় হাট-বাজার গুলো।এ ব্যাপারে স্হানীয় কাঁঠাল ব্যবসায়ী জুয়েল মিয়া জানান,বৃষ্টির অনুপস্থিতিতে বিগত বছরের তুলনায় গাছে কাঁঠাল কম ধরেছে।প্রতিটি গাছে গড়ে ৩০-৯০ টি কাঁঠাল ধরেছে।কাঁঠালগুলো পাকতে আরো মাসেক-দেড়েক লাগবে।প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে কাঁঠালগুলো বেশ ভালো দামেই বিক্রি করতে পারব বলে জানিয়েছেন তিনি।এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এনামুল হক বলেন,জাতীয় ফল কাঁঠাল উৎপাদনে খরচ খুবই কম। নির্ধারিত সময় গাছের পরিচর্চা যেমন-আগাছা পরিস্কার,গাছের নিচে উর্বর মাটি দেওয়া,এবং ফল আসার পর একটু দেখাশুনা করলেই চলে।তাছাড়া উপজেলা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে চাষিদেরকে সার্বিকভাবে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন

বানিয়াচংয়ে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঁঠাল

আপডেট সময় ০৭:৩৪:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ মার্চ ২০২২

বানিয়াচংয়ে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে জাতীয় ফল কাঁঠাল। গ্রীষ্মকালীন মৌসুমের অন্যতম ও জনপ্রিয় ফল হলো কাঁঠাল। উপজেলা সদরের স্হানীয় বাজারগুলোতে এখন পর্যন্ত কাঁঠাল না দেখা গেলে ও আগামী এক-দেড় মাসের মধ্যে বাজারে কাঁঠালের কেনা-বেচার ধুম পড়বে বলে জানিয়েছেন স্হানীয় ফল ব্যবসায়ীরা।চিকিৎসকদের মতে, কাঁঠালে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন-সি, ভিটামিন-বি, ভিটামিন-ই, ক্যালসিয়াম, ফলিক এসিড রয়েছে। টাটকা ফল পটাশিয়াম, ম্যাগনোশিয়াম এবং আয়রনের একটি ভাল উৎস। পাঁকা কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণ আঁশ রয়েছে। ফলে পাঁকা কাঁঠাল খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। সকল বয়সী মানুষই কমবেশি কাঁঠাল খেতে পছন্দ করে। কাঁঠালের বিচি (বীজ) প্রোটিন সমৃদ্ধ এবং পুষ্টিকর। এর বিচি মাংস ও সবজির সঙ্গে রান্না করে খাওয়া যায়।কাঁঠাল মিষ্টি রসালো ও স্বাদে অতুলনীয় হওয়ায় বাজারে এর চাহিদা অনেক।সামনে পহেলা বৈশাখ ও রমজান কে সামনে রেখে বেশ চাহিদা ও রয়েছে এই মৌসুমি ফল কাঁঠালের। সরেজমিনে বানিয়াচং উপজেলা সদরের আমিরখানী,চানপাড়া,কুতুবখানী,শেখেরমহল্লাসহ উপজেলার অধিকাংশ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে বাড়ির আঙ্গিনায় এবং বাণিজ্যিক উদ্দ্যেশ্যে পরিকল্পিতভাবে সৃজন করা হয়েছে জাতীয় ফল কাঁঠাল বাগান। এক একটি গাছে ৩০-১০০টির মতো কাঁঠাল রয়েছে। কাঁঠাল গাছগুলো যেনো এক প্রকার প্রকৃতির রুপ দিয়ে সাজানো হয়েছে।বৃষ্টির কারণে ফল বড় হতে না পারলেও এখন পর্যন্ত গাছে কাঁঠালের যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে তাতে কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে ফলন ভাল হবে বলে মনে করছেন বাগান মালিকরা।যদিও এখনও পাঁকা কাঁঠাল বাজারে আসতে শুরু করেনি তারপরও এক মাস পরেই লোভনীয় কাঁঠাল ফলের গন্ধে মুখরিত হয়ে উঠবে স্থানীয় হাট-বাজার গুলো।এ ব্যাপারে স্হানীয় কাঁঠাল ব্যবসায়ী জুয়েল মিয়া জানান,বৃষ্টির অনুপস্থিতিতে বিগত বছরের তুলনায় গাছে কাঁঠাল কম ধরেছে।প্রতিটি গাছে গড়ে ৩০-৯০ টি কাঁঠাল ধরেছে।কাঁঠালগুলো পাকতে আরো মাসেক-দেড়েক লাগবে।প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে কাঁঠালগুলো বেশ ভালো দামেই বিক্রি করতে পারব বলে জানিয়েছেন তিনি।এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এনামুল হক বলেন,জাতীয় ফল কাঁঠাল উৎপাদনে খরচ খুবই কম। নির্ধারিত সময় গাছের পরিচর্চা যেমন-আগাছা পরিস্কার,গাছের নিচে উর্বর মাটি দেওয়া,এবং ফল আসার পর একটু দেখাশুনা করলেই চলে।তাছাড়া উপজেলা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে চাষিদেরকে সার্বিকভাবে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।