হবিগঞ্জ ০৬:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo চুনারুঘাট থানার পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ১০ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ Logo চুনারুঘাট থানা পুলিশের অভিযানে চোরাই টমটম ব্যাটারিসহ গাড়ী উদ্ধার, গ্রেপ্তার-২ Logo মাধবপুরে গাঁজাসহ দুই মাদক কারবারি আটক Logo মাধবপুরে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় মদ ও গাঁজাসহ আটক-১ Logo প্রকৃতির প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতা আছে : মতবিনিময় সভায় জেলা প্রশাসক Logo জগদীশপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যানের হলেন আরজু মেম্বার Logo বাহুবল হাসপাতালের বাবুর্চির বিরুদ্ধে রান্নাঘরের দর্জা বন্ধ করে নিরীহ এক ব্যক্তিকে মারধোরের অভিযোগ Logo আনন্দঘন পরিবেশ এসএসসি ৯১-ব্যাচ সিলেটের মিলনমেলা সম্পন্ন Logo শাহাজিবাজার রেলওয়ে স্টেশনের সংস্কারের দাবিতে ইয়্যূথ সোশ্যাল অর্গানাইজেশনের মানববন্ধন Logo চুনারঘাট প্রবাসী সামাজিক সংগঠনের সাটিয়াজুরী ইউনিয়ন কমিটি গঠন
প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর বানিয়াচংয়ের ঐতিহাসিক রাজবাড়ী

বিশ্বের বৃহত্তম গ্রাম বানিয়াচং। এই গ্রামে দেখার কিছুর অভাব নেই। জমিতে কৃষকের লাঙ্গল নিয়ে খেলা, ধানের ক্ষেতের সবুজ রঙের ঘাস নিড়িয়ে দেয়া। এখানে রয়েছে বন জঙ্গল, খাল-বিল, পুকুর-জলাশয় আর প্রবাহমান নদী।

বইয়ের পাতায় কবিতা আর গল্পের মধ্যে ও মিশে যায় গভীর মুগ্ধতায়। শরতের মেঘমুক্ত আকাশে ভ্রমনপিপাসুদের ইচ্ছে করে দূরের সাদা পেজা তুলোর মতো মেঘদের সাথে উড়ে উড়ে চলে যাওয়া দিগন্ত ছাড়িয়ে। বাংলার মাঠ ঘাট যেন শুধু ডাক দিয়ে যায় ওদের সাথে সাথে দূর অজানায় চলে যাওয়ার।ইতিহাস ও ঐতিহ্যে বিদ্যমান বিশ্বের বৃহত্তম গ্রাম বানিয়াচং। তবে আসুন তাহলে সংক্ষেপে জেনে নেওয়া যাক বানিয়াচংয়ের ঐতিহাসিক রাজবাড়ি সম্পর্কে। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর বানিয়াচং রাজবাড়ি। আর এই সৌন্দর্য উপলব্ধি করার জন্য দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ঘুরতে চলে আসেন দর্শনার্থীরা।

রাজবাড়ীর মাঠের সবুজ ঘাসে হৃদয় ছুঁয়ে যায় ঘুরতে আসা ভ্রমণপিপাসুদের।বানিয়াচং রাজবাড়ি হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং উপজেলার বানিয়াচং গ্রামে অবস্থিত এক ঐতিহাসিক রাজবাড়ি।বানিয়াচং সদরের ১নং উত্তর-পূর্ব ইউনিয়নের বড়বাজার সংলগ্ন এই রাজবাড়ির অবস্হান।বানিয়াচং রাজবাড়ির স্বত্বাধিকারী হাবিব খা(গোবিন্দ সিংহ)। প্রাচীন এই রাজবাড়িটি জমিদার ঈসা খাঁর বাড়ির আদলে নির্মিত করা হয়েছিলো। তখনকার সময়ে বাড়ির চারদিকে ফুলের বাগান ও তিনটি প্রবেশদ্বার ছিলো।মহান মুক্তিযুদ্বের সময় ঐতিহাসিক এই রাজবাড়িটি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিলো। বর্তমানে এই রাজবাড়িতে স্নানাগার দুটি মসজিদ ও একটি পুরাতন ভবনের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে। গাড়ি পার্কিং করার জন্য রয়েছে সুবিশাল মাঠ।ছুটির দিনে ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে সকল প্রকার পেশাজীবিরা ছুটে চলেন রাজবাড়ির এই সৌন্দর্য উপলব্ধি করতে।ভ্রমণ স্মৃতি হিসেবে রেখে দিতে সুন্দর ভাবে করেন ফটোসেশান। প্রাচীন এই রাজবাড়িতে ঘুরতে আসা স্হানীয় তরুণী খাদিজা আক্তার জোনাকি জানান,প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ও ইতিহাসে সমৃদ্ধ আমাদের এই প্রিয় বানিয়াচং।

বানিয়াচংয়ের ঐতিহাসিক স্হাপনা ও নিদর্শনগুলো ভ্রমণ করলে জ্ঞান বিকশিত হয় এবং প্রিয় গ্রাম সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়।আমি সুযোগ পেলেই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপলব্ধি করতে ঐতিহাসিক রাজবাড়িতে চলে আসি।বর্তমানে উক্ত ঐতিহাসিক রাজবাড়ির উত্তরসূরি হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন আহমদ জুলকার নাঈন।