হবিগঞ্জ ০২:৪৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুরের ওসি রকিবুল ইসলাম Logo বাহুবলে মুদ্দত আলী ও তার পরিবারের উপর হয়রানীমূলক হত্যা মামলা ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে স্থানীয়দের মানববন্ধন Logo চুনারুঘাটে গাজীউর রহমান লন্ডনীর উদ্যোগে ৩শ’ চক্ষু রোগীকে ফ্রি চিকিৎসা ও ঔষধ বিতরণ  Logo মাধবপুরে কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও মেধাবৃত্তি প্রদান Logo চুনারুঘাটে উবাহাটা ইউনিয়নবাসীর সাথে ব্যারিস্টার সুমন এমপি’র মতবিনিময় Logo চুনারুঘাটের রাঁণীগাও ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের সাথে মত বিনিময় করেছেন ব্যারিস্টার সুমন এমপি Logo বাহুবল প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি গঠন: সভাপতি কুটি, সম্পাদক মাসুম Logo রেড সেল ইন বাংলাদেশের ৩য় প্রতিষ্টা বার্ষিকী অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে দক্ষিণা চরণ স্মৃতি টি-২০ ক্রিকেট লক্ষ টাকার ফাইনাল টুর্নামেন্ট Logo চুনারুঘাট থানা পুলিশের অভিযানে মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার

আমি জীবনে কোন অন্যায় কাজ করিনি, কাউকে করতে দিবো না-এমপি ব্যারিস্টার সুমন

হবিগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমি জীবনে কোনদিন অন্যায়মূলক কাজ করিনি,কাউকে অন্যায়মূলক কাজ করতে দেবো না।

তিনি বলেন ৩- মাসের মধ্যে মাধবপুর উপজেলা হাসপাতালকে নতুন রূপে দেখতে চাই। কোন সেবা গ্রহীতার অভিযোগ শুনতে চাইনা।

আজ শনিবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে মাধবপুর উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আমার ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দের কোন লোক নেই। আমার কোন লোক থানায় গিয়ে তদবির করবে না। আমি হয়ত মাঝে মধ্যে থানায় গিয়ে খোঁজ নিতে পারি আমার উপজেলা কেমন আছে। আমি গাড়ি নয়, আমি পায়ে হেটে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের খোঁজ নিবো। প্রতিটি পাড়া মহল্লা আমার পরিচিত।

সুমন বলেন, আমি সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে আমার অর্ধেক সময় চলে যাবে সচিবালয়ে শুধু তদবির করতে। কারণ আমি জনগণকে কথা দিয়েছি আমি উন্নয়ন করব, আমি পবিবর্তন করব। দুইজন মন্ত্রী থাকার পরও যে কাজগুলো হয় নাই আমি সেই কাজগুলো করতে চাই

মাদক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ধর্মঘর ইউনিয়নে নাকি মাদকের কারবার বেশি চলে। আজকের পর থেকে আমি আর একথা শুনতে চাই না।

এ সময় তিনি কৃষি বিভাগকে উদ্দেশ্য করে বলেন, পরিপত্র ছাড়া কোন ধরণের কাঠের গাছ লাগানো যাবে না। লাগানো মানে হচ্ছে একটা হরিলুট। দুই তিন বছর পরে কাটা হয়, এরপর এগুলা শেষ হয়ে যায়। এখন থেকে সরকারি পরিপত্রের পরে শুধু ফলের গাছ লাগাবেন। যাতে করে ভবিষ্যতে প্রতিটি মানুষের জন্য কাজে লাগে।
মতবিনিময় সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ.কে এম ফয়সাল এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মাধবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ মোঃ শাহজান,সহকারী কমিশনার (ভূমি)রাহাত বিন কুতুব, পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মানিক,সাবেক মেয়র শাহ মোঃ মুসলিম,মাওলান এম জাকিউর রহমান সমাজসেবক মোঃ বরকত আলী,
ইউ/পি চেয়ারম্যানবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাগণ এবং সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক পেলেন মাধবপুরের ওসি রকিবুল ইসলাম

আমি জীবনে কোন অন্যায় কাজ করিনি, কাউকে করতে দিবো না-এমপি ব্যারিস্টার সুমন

আপডেট সময় ০৪:৫১:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

হবিগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমি জীবনে কোনদিন অন্যায়মূলক কাজ করিনি,কাউকে অন্যায়মূলক কাজ করতে দেবো না।

তিনি বলেন ৩- মাসের মধ্যে মাধবপুর উপজেলা হাসপাতালকে নতুন রূপে দেখতে চাই। কোন সেবা গ্রহীতার অভিযোগ শুনতে চাইনা।

আজ শনিবার (২০ জানুয়ারি) দুপুরে মাধবপুর উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, আমার ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দের কোন লোক নেই। আমার কোন লোক থানায় গিয়ে তদবির করবে না। আমি হয়ত মাঝে মধ্যে থানায় গিয়ে খোঁজ নিতে পারি আমার উপজেলা কেমন আছে। আমি গাড়ি নয়, আমি পায়ে হেটে বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের খোঁজ নিবো। প্রতিটি পাড়া মহল্লা আমার পরিচিত।

সুমন বলেন, আমি সংসদ সদস্য থাকাকালীন সময়ে আমার অর্ধেক সময় চলে যাবে সচিবালয়ে শুধু তদবির করতে। কারণ আমি জনগণকে কথা দিয়েছি আমি উন্নয়ন করব, আমি পবিবর্তন করব। দুইজন মন্ত্রী থাকার পরও যে কাজগুলো হয় নাই আমি সেই কাজগুলো করতে চাই

মাদক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ধর্মঘর ইউনিয়নে নাকি মাদকের কারবার বেশি চলে। আজকের পর থেকে আমি আর একথা শুনতে চাই না।

এ সময় তিনি কৃষি বিভাগকে উদ্দেশ্য করে বলেন, পরিপত্র ছাড়া কোন ধরণের কাঠের গাছ লাগানো যাবে না। লাগানো মানে হচ্ছে একটা হরিলুট। দুই তিন বছর পরে কাটা হয়, এরপর এগুলা শেষ হয়ে যায়। এখন থেকে সরকারি পরিপত্রের পরে শুধু ফলের গাছ লাগাবেন। যাতে করে ভবিষ্যতে প্রতিটি মানুষের জন্য কাজে লাগে।
মতবিনিময় সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ.কে এম ফয়সাল এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মাধবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান সৈয়দ মোঃ শাহজান,সহকারী কমিশনার (ভূমি)রাহাত বিন কুতুব, পৌর মেয়র হাবিবুর রহমান মানিক,সাবেক মেয়র শাহ মোঃ মুসলিম,মাওলান এম জাকিউর রহমান সমাজসেবক মোঃ বরকত আলী,
ইউ/পি চেয়ারম্যানবৃন্দ, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাগণ এবং সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।