হবিগঞ্জ ১০:২০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন Logo আইনশৃঙ্খলায় অবদান রাক্ষায় জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার ওসি হিল্লোল রায় Logo চুনারুঘাটে এফ.এন ফাউন্ডেশন ইউকে’র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল Logo ফ্রেন্ডস ফাউন্ডেশন ও এসএসসি’৯১ ব্যাচ সিলেট বিভাগের মানবিক কার্যক্রম সম্পন্ন Logo চুনারুঘাটে যৌতুকের দাবীতে গর্ভবতী গৃহবধুকে ৫ দিন যাবৎ অমানুষিক নির্যাতন : ৯৯৯ কল পেয়ে উদ্ধার করল পুলিশ Logo হবিগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্প মূল্যে চাল বিক্রয় শুরু : তদারকিতে খাদ্য বিভাগ Logo মাধবপুরে বাংলাদেশ প্রাঃ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাঃ বিদ্যাঃ সমিতির যৌথ ইফতার মাহফিল Logo চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ ছিদ্দিকীর উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ Logo বঙ্গবন্ধু পরিষদ রংপুর জেলার মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন

মাধবপুরে অসহায় ব্যক্তির জায়গা দখলের চেষ্টা ও জোর পূর্বক পুকুরে মাছ নেয়ার অভিযোগ

  • মোঃ এরশাদ আলী :
  • আপডেট সময় ০৫:০২:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩
  • ৫২ বার পড়া হয়েছে

হবিগঞ্জের মাধবপুরে এক অসহায় ব্যক্তির জায়গা দখলের চেষ্টা ও জোর পূর্বক পুকর থেকে মাছ ধরে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদি হয়ে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেনর।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভুমি) কে নির্দেশ প্রদান করেন।

মামলার সুত্রে জানা যায়, মাধবপুর উপজেলার আদাঐর ইউপির ঘিলাতলী গ্রামের মৃত দেওয়ান সিরাজুল ইসলামের ছেলে দেওয়ান লোকমান হোসাইনের বাড়ি ও জায়গা জোর পূর্বক দখল করার চেষ্টা করছে একই গ্রামের মৃত ময়না মুন্সির ছেলে আবু ছায়েদ ও তার ছেলেরা।
আবু ছায়েদ ও তার ছেলেরা দেওয়ান লোকমান হোসাইনের পুকর থেকে জোর পূর্বক মাছ মেরে নিয়ে যাওয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

এ ঘটনায় দেওয়ান লোকমান হোসাইন বাদি হয়ে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে আবু ছায়েদ সহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেন ( মামলা নং-১৩৭/২২)।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাধবপুর সার্ভেয়ার দিয়ে সরজমিন তদন্ত করে দখল সংক্রান্ত বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে আদেশ দেন।
আদালতের নিদেশে সাভেয়ার শহীদুল ইসলাম একটি প্রতিবেতন দাখিল করেন।

প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন পুকর নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলমান আছে এবং বর্ণিত মামলার পূর্বে প্রথম পক্ষ অর্থাৎ দেওয়ান লোকমান হোসাইনের দখলে ছিল। প্রথম পক্ষের দখলে থাকলেও আসামী পক্ষ জোর পূর্বক মাছ মেরে নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন লোকমান হোসাইন।

লোকমান হোসাইন জানান, তিনি জীবিকার তাগিদে ঢাকাতে একটি বেসরকারি চাকুরি করেন। বাড়িতে তার স্ত্রী থাকেন । আসামীরা এলাকায় শক্তিশালী ও লাঠিয়াল হওয়ায় জোর পূর্বক মাছ ধরে নিয়ে যায়।

এই ঘটনায় তিনি প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেন। অপরদিকে আবু ছায়েদ জানান, এই সব ঘটনা সত্যি নয়

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন

মাধবপুরে অসহায় ব্যক্তির জায়গা দখলের চেষ্টা ও জোর পূর্বক পুকুরে মাছ নেয়ার অভিযোগ

আপডেট সময় ০৫:০২:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

হবিগঞ্জের মাধবপুরে এক অসহায় ব্যক্তির জায়গা দখলের চেষ্টা ও জোর পূর্বক পুকর থেকে মাছ ধরে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বাদি হয়ে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেনর।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিষয়টি তদন্ত করে দেখার জন্য মাধবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ( ভুমি) কে নির্দেশ প্রদান করেন।

মামলার সুত্রে জানা যায়, মাধবপুর উপজেলার আদাঐর ইউপির ঘিলাতলী গ্রামের মৃত দেওয়ান সিরাজুল ইসলামের ছেলে দেওয়ান লোকমান হোসাইনের বাড়ি ও জায়গা জোর পূর্বক দখল করার চেষ্টা করছে একই গ্রামের মৃত ময়না মুন্সির ছেলে আবু ছায়েদ ও তার ছেলেরা।
আবু ছায়েদ ও তার ছেলেরা দেওয়ান লোকমান হোসাইনের পুকর থেকে জোর পূর্বক মাছ মেরে নিয়ে যাওয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

এ ঘটনায় দেওয়ান লোকমান হোসাইন বাদি হয়ে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে আবু ছায়েদ সহ ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেন ( মামলা নং-১৩৭/২২)।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে সহকারী কমিশনার (ভুমি) মাধবপুর সার্ভেয়ার দিয়ে সরজমিন তদন্ত করে দখল সংক্রান্ত বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে আদেশ দেন।
আদালতের নিদেশে সাভেয়ার শহীদুল ইসলাম একটি প্রতিবেতন দাখিল করেন।

প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন পুকর নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলমান আছে এবং বর্ণিত মামলার পূর্বে প্রথম পক্ষ অর্থাৎ দেওয়ান লোকমান হোসাইনের দখলে ছিল। প্রথম পক্ষের দখলে থাকলেও আসামী পক্ষ জোর পূর্বক মাছ মেরে নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন লোকমান হোসাইন।

লোকমান হোসাইন জানান, তিনি জীবিকার তাগিদে ঢাকাতে একটি বেসরকারি চাকুরি করেন। বাড়িতে তার স্ত্রী থাকেন । আসামীরা এলাকায় শক্তিশালী ও লাঠিয়াল হওয়ায় জোর পূর্বক মাছ ধরে নিয়ে যায়।

এই ঘটনায় তিনি প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করেন। অপরদিকে আবু ছায়েদ জানান, এই সব ঘটনা সত্যি নয়