হবিগঞ্জ ০১:০৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন Logo আইনশৃঙ্খলায় অবদান রাক্ষায় জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার ওসি হিল্লোল রায় Logo চুনারুঘাটে এফ.এন ফাউন্ডেশন ইউকে’র চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল Logo ফ্রেন্ডস ফাউন্ডেশন ও এসএসসি’৯১ ব্যাচ সিলেট বিভাগের মানবিক কার্যক্রম সম্পন্ন Logo চুনারুঘাটে যৌতুকের দাবীতে গর্ভবতী গৃহবধুকে ৫ দিন যাবৎ অমানুষিক নির্যাতন : ৯৯৯ কল পেয়ে উদ্ধার করল পুলিশ Logo হবিগঞ্জে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির স্বল্প মূল্যে চাল বিক্রয় শুরু : তদারকিতে খাদ্য বিভাগ Logo মাধবপুরে বাংলাদেশ প্রাঃ বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি ও বাংলাদেশ সরকারি প্রাঃ বিদ্যাঃ সমিতির যৌথ ইফতার মাহফিল Logo চুনারুঘাট সাংবাদিক ফোরামের দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত Logo চুনারুঘাটে চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফ ছিদ্দিকীর উদ্যোগে দরিদ্রদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ Logo বঙ্গবন্ধু পরিষদ রংপুর জেলার মহান স্বাধীনতা দিবস ও জাতীয় দিবস পালন
কেউ নিজের বাড়ি, কেউ গাড়ি, কেউ রাস্তা রাঙাচ্ছেন পতাকার রঙে

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের জার্সি পাইকারিতে সংকট, রমরমা খুচরায় বিক্রি

  • আলোকিত ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় ১২:২৫:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর ২০২২
  • ১৪১ বার পড়া হয়েছে

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের জার্সি পাইকারিতে এখন পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে রমরমা। আসছে বিশ্বকাপ ফুটবল উন্মাদনায় কাঁপছে গোটা বিশ্ব। দেশের কেউ নিজের বাড়ি, কেউ গাড়ি, কেউ রাস্তা রাঙাচ্ছেন পতাকার রঙে। দীর্ঘতম পতাকা বানানোর প্রতিযোগিতাও থেমে নেই।প্রিয় দলের পতাকা-জার্সি নিয়ে মাতোয়ারা সমর্থকরা। সমর্থনে শীর্ষে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। কাতার বিশ্বকাপের দ্বারপ্রান্তে এসে পতাকার পাশাপাশি ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়েছে জার্সি নিয়ে। এখানেও এগিয়ে দুই দলের দুই শীর্ষ তারকা মেসি ও নেইমার। রাজধানীতে পতাকা ও জার্সির ব্যবসা এখন রমরমা। চাহিদা এত বেশি যে পাইকাররাও খুচরা বিক্রি শুরু করেছেন। দামও বাড়তি কয়েক গুণ।আজ সোমবার (১৪ নভেম্বর) সরেজমিনে রাজধানীর গুলিস্তান পাইকারি বাজার ও এর আশপাশের খুচরা বাজার ঘুরে দেখা যায়, পাইকাররা আর পাইকারি জার্সি-পতাকা সরবরাহ করছেন না। আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের পতাকার সংকট। পণ্য কম থাকায় জার্সি বিক্রি হচ্ছে খুচরায়। এতে লাভ কয়েকগুণ বেশি হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। শেষ মুহূর্তে পাইকারদের স্টক শেষ হলেও দেশের বিভিন্ন প্রান্তের দোকানিরা খুচরা বাজার থেকে বেশি দরে কিনছেন পতাকা।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় দুই থেকে চারগুণ দাম বেড়েছে জার্সির। এরপরও বিক্রি থেকে নেই, বাড়ছে ক্রেতা। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে আর্জেন্টিনার জার্সি ও পতাকা, এরপরই রয়েছে ব্রাজিল। বিক্রি বেড়েছে জার্মানি, ফ্রান্সসহ অন্যান্য দেশের পতাকা-জার্সিরও।

এ এলাকায় ভালো মানের জার্সি বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ২শ থেকে ১ হাজার ২৫০ টাকায়, যেটা এক সপ্তাহ আগেও ছিল ৫শ থেকে ৫৫০ টাকা। ফ্যান ভার্সন জার্সি বিক্রি হচ্ছে ৯শ থেকে হাজার টাকার মধ্যে, আগে যেটা বিক্রি হয়েছে ৩৫০ থেকে ৪শ টাকায়। থাই ভার্সন বিক্রি হচ্ছে ৭শ টাকায়, যেটা এর আগে ৩শ থেকে ৩৫০ টাকায় পাওয়া যেত।

এছাড়া সাধারণ জার্সি বিক্রি হচ্ছে ৬শ থেকে ৭৫০ টাকার মধ্যে। যেগুলো এর আগে বিক্রি হয়েছে ২শ থেকে ২২০ টাকার মধ্যে। দাম বেড়েছে পতাকারও। গুলিস্তান এলাকায় ৫/৩ ফুট পতাকা সপ্তাহ খানেক আগে ৮০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ১৮০ থেকে ২শ টাকা চাওয়া হচ্ছে। কদর বেড়েছে পতাকার আদলে তৈরি বিভিন্ন ক্যাপের।

 

এ নিয়ে কথা হয় স্বাধীন বাংলা স্পোর্টসের বিক্রেতা নোমানের সঙ্গে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ১৫ থেকে ২০ দিন ধরেই এলসি খোলা যাচ্ছে না। এতে নতুন করে জার্সির কাপড় আমদানি করা যায়নি। অনেকেই আমদানি করতে পারেনি। ফলে নতুন করে জার্সি তৈরি করাও যাচ্ছে না। যাদের হাতে রিজার্ভ ছিল তারা কাপড়ের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

একই কথা বলেন আল্লাহর দান স্টোরের ম্যানেজার বাপ্পি। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, এর আগে কাপড় ছিল, এ কারণে জার্সির অভাব পড়েনি। এখন জার্সি বানানোর কাপড় নেই বলে দাম বেড়েছে।

কোন জার্সির চাহিদা বেশি জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে আর্জেন্টিনার জার্সি, এরপর রয়েছে ব্রাজিল। অন্য দেশের জার্সিও বিক্রি হচ্ছে, তবে সেটা খুবই কম।

নাটোর থেকে হোলসেল বিক্রেতা আমদ আলী এসেছেন জার্সি কিনতে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, গুলিস্তান এলাকা থেকে দুই সপ্তাহ আগেও আমি জার্সি নিয়ে এলাকায় বিক্রি করেছি। এখন আর পাইকারি জার্সি পাওয়া যাচ্ছে না। খুচরা বাজার থেকে কিছুটা সংগ্রহ করে এলাকায় বিক্রি করবো।

 

পাইকারিতে কেন বিক্রি হচ্ছে না- এমন প্রশ্নের জবাবে পাইকার ব্যবসায়ী বাপ্পি বলেন, আমার দোকানে মাল থাকলে না পাইকারি বিক্রি করবো। যেখানে মাল নেই সেখানে পাইকারে সেল কীভাবে দেবো। যতটুকু আছে এগুলো খুচরা বিক্রি করার মতো। তাই পাইকারি বন্ধ করে খুচরা বিক্রি করছি।

আগামী ২০ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২২তম আসর। এবার বিশ্বকাপ হচ্ছে কাতারে। প্রথম ম্যাচ শুরু হবে ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায়। উদ্বোধনী ম্যাচের পাশাপাশি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও হবে ৬০ হাজার আসন বিশিষ্ট আল বাইত স্টেডিয়ামে। রাজধানী দোহা থেকে যা প্রায় ৫২ কিলোমিটার দূরে। ৯২ বছরের ঐতিহ্য বদলে জুন-জুলাইয়ের পরিবর্তে এবার নভেম্বর-ডিসেম্বরে গড়াতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

আমার স্ত্রী সন্তানদের কোনো সম্পত্তির মালিক হতে দিব না, ব্যারিস্টার সুমন

কেউ নিজের বাড়ি, কেউ গাড়ি, কেউ রাস্তা রাঙাচ্ছেন পতাকার রঙে

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের জার্সি পাইকারিতে সংকট, রমরমা খুচরায় বিক্রি

আপডেট সময় ১২:২৫:১৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর ২০২২

আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের জার্সি পাইকারিতে এখন পাওয়া যাচ্ছেনা। তবে খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে রমরমা। আসছে বিশ্বকাপ ফুটবল উন্মাদনায় কাঁপছে গোটা বিশ্ব। দেশের কেউ নিজের বাড়ি, কেউ গাড়ি, কেউ রাস্তা রাঙাচ্ছেন পতাকার রঙে। দীর্ঘতম পতাকা বানানোর প্রতিযোগিতাও থেমে নেই।প্রিয় দলের পতাকা-জার্সি নিয়ে মাতোয়ারা সমর্থকরা। সমর্থনে শীর্ষে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা। কাতার বিশ্বকাপের দ্বারপ্রান্তে এসে পতাকার পাশাপাশি ব্যাপক আগ্রহ তৈরি হয়েছে জার্সি নিয়ে। এখানেও এগিয়ে দুই দলের দুই শীর্ষ তারকা মেসি ও নেইমার। রাজধানীতে পতাকা ও জার্সির ব্যবসা এখন রমরমা। চাহিদা এত বেশি যে পাইকাররাও খুচরা বিক্রি শুরু করেছেন। দামও বাড়তি কয়েক গুণ।আজ সোমবার (১৪ নভেম্বর) সরেজমিনে রাজধানীর গুলিস্তান পাইকারি বাজার ও এর আশপাশের খুচরা বাজার ঘুরে দেখা যায়, পাইকাররা আর পাইকারি জার্সি-পতাকা সরবরাহ করছেন না। আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের পতাকার সংকট। পণ্য কম থাকায় জার্সি বিক্রি হচ্ছে খুচরায়। এতে লাভ কয়েকগুণ বেশি হচ্ছে ব্যবসায়ীদের। শেষ মুহূর্তে পাইকারদের স্টক শেষ হলেও দেশের বিভিন্ন প্রান্তের দোকানিরা খুচরা বাজার থেকে বেশি দরে কিনছেন পতাকা।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় দুই থেকে চারগুণ দাম বেড়েছে জার্সির। এরপরও বিক্রি থেকে নেই, বাড়ছে ক্রেতা। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে আর্জেন্টিনার জার্সি ও পতাকা, এরপরই রয়েছে ব্রাজিল। বিক্রি বেড়েছে জার্মানি, ফ্রান্সসহ অন্যান্য দেশের পতাকা-জার্সিরও।

এ এলাকায় ভালো মানের জার্সি বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ২শ থেকে ১ হাজার ২৫০ টাকায়, যেটা এক সপ্তাহ আগেও ছিল ৫শ থেকে ৫৫০ টাকা। ফ্যান ভার্সন জার্সি বিক্রি হচ্ছে ৯শ থেকে হাজার টাকার মধ্যে, আগে যেটা বিক্রি হয়েছে ৩৫০ থেকে ৪শ টাকায়। থাই ভার্সন বিক্রি হচ্ছে ৭শ টাকায়, যেটা এর আগে ৩শ থেকে ৩৫০ টাকায় পাওয়া যেত।

এছাড়া সাধারণ জার্সি বিক্রি হচ্ছে ৬শ থেকে ৭৫০ টাকার মধ্যে। যেগুলো এর আগে বিক্রি হয়েছে ২শ থেকে ২২০ টাকার মধ্যে। দাম বেড়েছে পতাকারও। গুলিস্তান এলাকায় ৫/৩ ফুট পতাকা সপ্তাহ খানেক আগে ৮০ থেকে ১০০ টাকায় বিক্রি হলেও এখন তা ১৮০ থেকে ২শ টাকা চাওয়া হচ্ছে। কদর বেড়েছে পতাকার আদলে তৈরি বিভিন্ন ক্যাপের।

 

এ নিয়ে কথা হয় স্বাধীন বাংলা স্পোর্টসের বিক্রেতা নোমানের সঙ্গে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ১৫ থেকে ২০ দিন ধরেই এলসি খোলা যাচ্ছে না। এতে নতুন করে জার্সির কাপড় আমদানি করা যায়নি। অনেকেই আমদানি করতে পারেনি। ফলে নতুন করে জার্সি তৈরি করাও যাচ্ছে না। যাদের হাতে রিজার্ভ ছিল তারা কাপড়ের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

একই কথা বলেন আল্লাহর দান স্টোরের ম্যানেজার বাপ্পি। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, এর আগে কাপড় ছিল, এ কারণে জার্সির অভাব পড়েনি। এখন জার্সি বানানোর কাপড় নেই বলে দাম বেড়েছে।

কোন জার্সির চাহিদা বেশি জানতে চাইলে তিনি বলেন, সবচেয়ে বেশি বিক্রি হচ্ছে আর্জেন্টিনার জার্সি, এরপর রয়েছে ব্রাজিল। অন্য দেশের জার্সিও বিক্রি হচ্ছে, তবে সেটা খুবই কম।

নাটোর থেকে হোলসেল বিক্রেতা আমদ আলী এসেছেন জার্সি কিনতে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, গুলিস্তান এলাকা থেকে দুই সপ্তাহ আগেও আমি জার্সি নিয়ে এলাকায় বিক্রি করেছি। এখন আর পাইকারি জার্সি পাওয়া যাচ্ছে না। খুচরা বাজার থেকে কিছুটা সংগ্রহ করে এলাকায় বিক্রি করবো।

 

পাইকারিতে কেন বিক্রি হচ্ছে না- এমন প্রশ্নের জবাবে পাইকার ব্যবসায়ী বাপ্পি বলেন, আমার দোকানে মাল থাকলে না পাইকারি বিক্রি করবো। যেখানে মাল নেই সেখানে পাইকারে সেল কীভাবে দেবো। যতটুকু আছে এগুলো খুচরা বিক্রি করার মতো। তাই পাইকারি বন্ধ করে খুচরা বিক্রি করছি।

আগামী ২০ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ ফুটবলের ২২তম আসর। এবার বিশ্বকাপ হচ্ছে কাতারে। প্রথম ম্যাচ শুরু হবে ২১ নভেম্বর বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায়। উদ্বোধনী ম্যাচের পাশাপাশি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানও হবে ৬০ হাজার আসন বিশিষ্ট আল বাইত স্টেডিয়ামে। রাজধানী দোহা থেকে যা প্রায় ৫২ কিলোমিটার দূরে। ৯২ বছরের ঐতিহ্য বদলে জুন-জুলাইয়ের পরিবর্তে এবার নভেম্বর-ডিসেম্বরে গড়াতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ।