হবিগঞ্জ ০৭:২১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo সৎ প্রশাসকদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা কোথায়? Logo চুনারুঘাটে ৩৯ বছরের বর্ণাঢ্য শিক্ষকতা পেশার অরবিন্দ দত্তের সমাপ্তি Logo ব্যারিস্টার সুমন এমপিকে সংবর্ধনা দিল চুনারুঘাট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি Logo চুনারুঘাটে ১৭ কেজি গাঁজা সহ কারবারি গ্রেপ্তার Logo ৪র্থ বারের মতো জেলার শ্রেষ্ঠ হলেন চুনারুঘাট থানার এসআই লিটন রায় Logo ব্যারিস্টার সুমনকে হত্যার পরিকল্পনাকারী সোহাগ গ্রেফতার Logo ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় হত্যা মামলার আসামি জালাল গ্রেপ্তার Logo ব্যারিস্টার সুমনকে হত্যার পরিকল্পনার ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন Logo চুনারুঘাটে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হলেন তৌফিক মিয়া তালুকদার Logo ব্যারিস্টার সুমনের হত্যার পরিকল্পনারকারীদের গ্রেফতারে দাবীতে চুনারুঘাটে মাথায় কাফনের কাপড় বেঁধে প্রতিবাদ 

চুনারুঘাটে যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় স্ত্রীকে তালাক দিলেন পুলিশ সদস্য

পুলিশে কর্মরত স্বামী ও কর্মরত অপর এক নারী পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন স্ত্রী। গত ৮ মার্চ হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের করেন শারমিন আক্তার নামের এক মহিলা। মামলায় শারমিন আক্তার তার স্বামী,পুলিশ সদস্য শিবলু মিয়া (২৮) ও নারায়নগঞ্জ পুলিশ লাইনে কর্মরত নারী পুলিশ সদস্য তানজিনা আক্তার জেমি (২৪)কে আসামি করা হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য চুনারুঘাট থানাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

চুনারুঘাট উপজেলার বড়জুম গ্রামের আঃ মালেকের কন্যা শারমিন আক্তার লিখিত আবেদনে বলেন, দুধপাতিল গ্রামের মৃত রমিজ উল্লাহর পুত্র পুলিশ সদস্য শিবলু মিয়ার সাথে ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই ৪ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে হয় তার। সংসারে লুৎফুর নাহার তানহা নামের ২ বছরের ১ কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী ৩ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। এক সময় শারমিন ১লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা দামের মোটরসাইকেল যৌতুক হিসাবে প্রদান করেন। তাতেও ক্ষান্ত হননি তার স্বামী শিবলু।
আবারও ৩ লক্ষ টাকা যৌতুকের দাবি মেটাতে না পারলে তানজিনাকে বিয়ে করার হুমকি দেন তিনি।
শারমিন এ বিষয়ে পুলিশ সুপার (সিলেট) এর কাছে অভিযোগ দায়ের করলে বিষয়টি এক পর্যায়ে আপোষে নিষ্পত্তি হয়। পরবর্তীতে কৌশলে চুনারুঘাটের একটি ক্লিনিকে শারমিনের গর্ভপাত ঘটানো হয়।
স্বামীর মন রক্ষার্থে বিষয়টি মেনে নিয়ে ঘর সংসার করতে থাকেন শারমিন।
গত ১২ ফেব্রুয়ারি শারমিনকে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে শিবলু। যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় সে শারমিনকে বেধড়ক মারধর করে।চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করেন শারমিন।
শারমিন আরও বলেন,তার স্বামী শিবলু মিয়া তানজিনা নামের এক পুলিশ সদস্যের সাথে নতুন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।
তবে, বিষয়টি অস্বীকার করে তার স্বামী শিবলু মুঠোফোনে বলেন, আমি শারমিনকে কোর্টের মাধ্যমে তালাক দিয়েছি। এর বেশি কিছু বলা আমার পক্ষে অসম্ভব।
পুলিশ সদস্য শিবলুর এহেন আচরণে শারমিন দিশেহারা। তিনি কণ্যা তানহাকে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

ট্যাগস :
আপলোডকারীর তথ্য

খন্দকার আলাউদ্দিন

হ্যালো, আমি খন্দকার আলাউদ্দিন, আপনাদের চারিপাশের সংবাদ দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করুন।
জনপ্রিয় সংবাদ

সৎ প্রশাসকদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা কোথায়?

চুনারুঘাটে যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় স্ত্রীকে তালাক দিলেন পুলিশ সদস্য

আপডেট সময় ০৬:০৬:৫১ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ মার্চ ২০২২

পুলিশে কর্মরত স্বামী ও কর্মরত অপর এক নারী পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন স্ত্রী। গত ৮ মার্চ হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলাটি দায়ের করেন শারমিন আক্তার নামের এক মহিলা। মামলায় শারমিন আক্তার তার স্বামী,পুলিশ সদস্য শিবলু মিয়া (২৮) ও নারায়নগঞ্জ পুলিশ লাইনে কর্মরত নারী পুলিশ সদস্য তানজিনা আক্তার জেমি (২৪)কে আসামি করা হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য চুনারুঘাট থানাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

চুনারুঘাট উপজেলার বড়জুম গ্রামের আঃ মালেকের কন্যা শারমিন আক্তার লিখিত আবেদনে বলেন, দুধপাতিল গ্রামের মৃত রমিজ উল্লাহর পুত্র পুলিশ সদস্য শিবলু মিয়ার সাথে ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই ৪ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে হয় তার। সংসারে লুৎফুর নাহার তানহা নামের ২ বছরের ১ কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই তার স্বামী ৩ লাখ টাকা যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। এক সময় শারমিন ১লক্ষ ৫৩ হাজার টাকা দামের মোটরসাইকেল যৌতুক হিসাবে প্রদান করেন। তাতেও ক্ষান্ত হননি তার স্বামী শিবলু।
আবারও ৩ লক্ষ টাকা যৌতুকের দাবি মেটাতে না পারলে তানজিনাকে বিয়ে করার হুমকি দেন তিনি।
শারমিন এ বিষয়ে পুলিশ সুপার (সিলেট) এর কাছে অভিযোগ দায়ের করলে বিষয়টি এক পর্যায়ে আপোষে নিষ্পত্তি হয়। পরবর্তীতে কৌশলে চুনারুঘাটের একটি ক্লিনিকে শারমিনের গর্ভপাত ঘটানো হয়।
স্বামীর মন রক্ষার্থে বিষয়টি মেনে নিয়ে ঘর সংসার করতে থাকেন শারমিন।
গত ১২ ফেব্রুয়ারি শারমিনকে যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে শিবলু। যৌতুক দিতে অস্বীকার করায় সে শারমিনকে বেধড়ক মারধর করে।চুনারুঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করেন শারমিন।
শারমিন আরও বলেন,তার স্বামী শিবলু মিয়া তানজিনা নামের এক পুলিশ সদস্যের সাথে নতুন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।
তবে, বিষয়টি অস্বীকার করে তার স্বামী শিবলু মুঠোফোনে বলেন, আমি শারমিনকে কোর্টের মাধ্যমে তালাক দিয়েছি। এর বেশি কিছু বলা আমার পক্ষে অসম্ভব।
পুলিশ সদস্য শিবলুর এহেন আচরণে শারমিন দিশেহারা। তিনি কণ্যা তানহাকে নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।